Let's Discuss!

বিভিন্ন পরীক্ষার সহায়ক মডেল টেস্ট এবং সাজেশন
#2239
৪১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি প্রস্তুতি: বাংলা ভাষা ও সাহিত্য
বাংলা ভাষা --- ১৫
প্রয়োগ-অপপ্রয়োগ
- ‘ইতিমধ্যে’ শব্দটি যে কারণে অশুদ্ধ - শব্দ গঠনজনিত।
- ‘বিদেহী’ শব্দের সঠিক প্রয়োগ - বিদেহ।
- ‘মন্ত্রীপরিষদ’ যে কারণে অশুদ্ধ - বানানগত।
বানান ও বাক্য শুদ্ধি
বানান শুদ্ধি
- নিশীথিনী । মনীষী । দধীচি । শিরশ্ছেদ। কৃচ্ছ্র । আয়ত্ত । অপাঙক্তেয় । গন্ধেশ্বরী । জলোচ্ছ্বাস । ঔর্ণনাভ । ব্রাহ্মণ।
বাক্য শুদ্ধি
অশুদ্ধ: সে বড় দুরাবস্থায় পড়েছে।
শুদ্ধ: সে বড় দুরবস্থায় পড়েছে।
অশুদ্ধ: ধৈর্যতা, সহিষ্ণুতা মহত্তের লক্ষণ।
শুদ্ধ: ধৈর্য ও সহিষ্ণুতা মহত্ত্বের লক্ষণ।
অশুদ্ধ: বিধি লঙ্ঘন হয়েছে।
শুদ্ধ: বিধি লঙ্ঘিত হয়েছে।

পারিভাষিক শব্দ
Bankrupt- দেউলিয় । Curfew- সান্ধ্য আইন। Deadlock- অচলাবস্থা। Morgue- শবাগার। Corrigendum- শুদ্ধিপত্র। Divulge- প্রকাশ করা।

সমার্থক শব্দ
অরণ্য - কানন, জঙ্গল, অটবি, কান্তার, বিপিন।
কন্যা - নন্দিনী, আত্নজা, তনয়া, দুলালি, মেয়ে।
সূর্য - দিবাকর, ভাস্কর, রবি, তপন, আফতাব, আদিত্য, অরুণ।

বিপরীতার্থক শব্দ
খিড়কি - সিংহদ্বার।
উদ্ধত - বিনীত।
চপল - গম্ভীর।
ঐহিক - পারত্রিক।
ক্ষয়িষ্ণু - বর্ধিষ্ণু।
গুরু - লঘু।
চিরন্তন - ক্ষণকালীন।
জনাকীর্ণ - জনবিরল।

ধ্বনি ও বর্ণ
ভাষার মূল উপাদান- ধ্বনি।
মাত্রাহীন স্বরধ্বনি -৪টি।
ড় ও ঢ় ধ্বনিকে বলা হয় - তাড়নজাত ধ্বনি।
বাংলা ভাষায় যৌগিক স্বরধ্বনির সংখ্যা - ২৫টি।
’ণ-ত্ব’ ও ’ষ-ত্ব’ বিধান ব্যাকরণের যে অংশে আলোচিত হয় - ধ্বনিতত্বে।

শব্দ ও পদ
- অর্থগত দিক দিয়ে শব্দ - ৩ প্রকার।
- ’সন্দেশ’ যে শ্রেণির শব্দ - রূঢ়ি।
- ’শাকসবজি’ শব্দটি যে দুটি ভাষার মিশ্রণ - তৎসম + ফারসি।
- ’জানালা’ শব্দটি যে ভাষা থেকে আগত - পর্তুগিজ।
- ’মূল’ শব্দের বিশেষণ হচ্ছে- মৌলিক।
বাক্য
‘সে বলতে চায় কিন্তু বলে না।’ - যে ধরনের বাক্য - যৌগিক।
’তার বয়স হলেও বুদ্ধি হয়নি।’ যে ধরনের বাক্য - সরল।
’তার বয়স বেড়েছে কিন্তু বুদ্ধি বাড়েনি।’ যে ধরনের বাক্য - যৌগিক।

প্রকুতি ও প্রত্যয়
- উক্তি=√বচ্ + ক্তি। মোড়ক=√মুড় + অক। নায়ক =√নী + ণক । মহিমা = মহৎ + ইমন। ঐচ্ছিক = ইচ্ছা + ইক। গ্রামীণ = গ্রাম + ঈন। লেখক = √লিখ্ + অক। নন্দন = √নন্দি + অন।
সন্ধি
- দ্যুলোক= দিব্ + লোক। তপোবন = তপঃ + বন। সংস্কার = সম্ + কার। মনঃকষ্ট= মনঃ + কষ্ট। দুর্যোগ = দুঃ + যোগ। তস্কর = তৎ + কর। শুদ্ধোদন = শুদ্ধ + ওদন। আশ্চর্য = আ +চর্য । বাচস্পতি = বাচঃ + পতি।
সমাস
- মনমাঝি - রূপক কর্মধারয়। অরুণরাঙা - উপমান কর্মধারয়। প্রভাত - প্রাদি। চতুরঙ্গ - দ্বিগু। পলান্ন - কর্মধারয়। দশানন - বহুব্রীহি। নদীমাতুক - বহুব্রীহি।
সাহিত্য ২০
ক. প্রাচীন ও মধ্যযুগ ০৫
- চর্যাপদের আদি পদ রচয়িতা - লুইপা।
- ড. হরপ্রসাদ শাস্ত্রীর উপাধি - মহামহোপাধ্যায়।
- চণ্ডীমঙ্গলের আদি কবি - মানিক দত্ত।
- চর্যাপদের পদগুলো টীকার মাধ্যমে ব্যাখ্যা করেন - মুনিদত্ত।
- চর্যাপদে যে পদটি টীকাকার ব্যাখ্যা করেননি - ১১নং পদ।
- চর্যাপদ যে ধর্মাবলম্বীদের সাহিত্য - বৌদ্ধ।
- প্রাচীন যুগে কৃষিকাজের জন্য উপযোগী সাহিত্য- ডাক ও খনার বচন।
- ‘শ্রীকৃষ্ণকীর্তন’ কাব্যটি উদ্ধার করেন - বসন্তরঞ্জন রায় বিদ্বদ্বল্লভ (১৯০৯সালে)।
- বাংলা টপ্পা গানের জনক - রামনিধি গুপ্ত।
- বাংলা সাহিত্যের অমর চরিত্র ঈশ্বরী পাটনীর স্রষ্টা - ভারতচন্দ্র রায়গুণাকর।

খ. আধুনিক যুগ (১৮০০-বর্তমান) ১৫
- ‘মুসলিম সাহিত্য সমাজ’- মুখপত্র ছিল - শিখা পত্রিকা।
- ‘মাসিক মোহাম্মদী’ পত্রিকা প্রকাশিত হয় - ১৯২৭ সালে।
- ‘তত্ত্ববোধিনী’ পত্রিকা প্রকাশিত হয় - ১৮৪৩ সালে।
- বিনয়কৃষ্ণ মুখোপাধ্যায় এর ছদ্মনাম - যাযাবর।
- ‘কেন পান্থ ক্ষান্ত হও হেরি দীর্ঘ পথ’ চরণটি যার লেখা - কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদার।
- ‘জাতির পতাকা আজ খামচে ধরেছে সেই পুরনো শকুন’ চরণটির রচয়িতা- রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহ।
- ‘কাশবনের কন্যা’ যে জাতীয় রচনা- উপন্যাস।
- ‘গম্ভীরা’ গানের উৎপত্তি- পশ্চিমবঙ্গের মালদহে।
- ‘কেরি সাহেবের মুনশী’ বলা হয় - রামরাম বসুকে।
- ‘ইয়ং বেঙ্গল’ গোষ্ঠীর মুখপত্ররূপে প্রকাশিত পত্রিকা- জ্ঞানান্বেষণ।
- ‘বত্রিশ সিংহাসন’ যার লেখা - মৃত্যুঞ্জয় বিদ্যালঙ্কার।
- ঢাকা থেকে প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ- নীলদর্পণ।
- যুগসন্ধিক্ষণের কবি - ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত।
- ‘নদী ও নারী’ উপন্যাসের রচয়িতা - হুমায়ুন কবির।
- ‘কবর’ নাটকটি যে প্রেক্ষাপটে রচিত - ভাষা আন্দোলন।
- ‘পালামৌ’ গ্রন্থটি রচনা করেন - সঞ্জীবচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়।
- ‘ভিখু’ ও ‘পাঁচী’ যে গল্পের চরিত্র- প্রাগৈতিহাসিক।
- ‘ফুল ফুটুক আর না ফুটুক আজ বসন্ত উক্তিটি - সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের।
- ‘দারিদ্র্য’ কবিতাটি কাজী নজরুল ইসলামের যে কাব্যের অন্তর্ভুক্ত - সিন্ধু হিন্দোল।
- ‘আর্তনাদ’ উপন্যাসের পটভূমি- ভাষা আন্দোলন।
- ‘আসমানী পর্দা’ গল্পগ্রন্থের রচয়িতা- আবুল মনসুর আহমদ।
- কবি জসিমউদ্দীন জন্মগ্রহণ করেন- জানুয়ারি ১৯০৩; তাম্বুলখানা গ্রাম, ফরিদপুর।
- ‘সাঁঝের মায়া’ কাব্যগ্রন্থের রচয়িতা- বেগম সুফিয়া কামাল।
- ‘চাঁদের অমাবস্যা’ উপন্যাসের রচয়িতা- সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ্।

১। কোনটি শুদ্ধ বানান ক. Tubarculisis খ. Tubarculos[…]

১। সুন্দর ব্যবহার একটি — - প্রবন্ধ ২। সাগরকন[…]

২০। দেশে টিকা উৎপাদন করতে পারে কতটি প্রতিষ্ঠান? উ:[…]

বাংলাদেশ ১৪.০৭.২০২০। মঙ্গলবার - বগুড়া-১ ও যশোর-৬ […]