Try bdQuiz for Free!

চাকরি প্রর্থীদের সমস্যা, প্রশ্ন, মতামত এবং বিভিন্ন পেশা সর্ম্পকে আলোচনা, অভিজ্ঞতা ও পরামর্শ
#7454
যে ৭টি কাজে আপনার মস্তিষ্ককে রাখবে সতেজ মস্তিষ্ক। এই একটি মাত্র বস্তু আমাদের সুন্দর জীবন গড়ার অন্যতম হাতিয়ার। এই একটিমাত্র অংশের কারণে মানুষ পুরো প্রাণিজগতের মাঝেই আলাদা একটি স্থানে গাঁড়িয়ে আছে। মানুষের যাবতীয় কাজ নিয়ন্ত্রণ করে আসলে এ মস্তিষ্কই। আর এই মস্তিষ্ককে কর্মক্ষম ও সতেজ রাখতে প্রয়োজন পর্যাপ্ত পরিমাণ অক্সিজেন। আর ৭টি কাজ আপনার মস্তিষ্ককে দেবে অস্কিজেনের যোগান, বাড়াবে কর্মক্ষমতা।

১. পড়ুন বই: যদি প্রশ্ন করা হয় কোন জিনিসটা মানুষের মনকে সহজে আলোকিত করে? উত্তরটি খুব ছোট। সেটি হচ্ছে বই। একটি ভালো বই আপনার স্নায়ুকে করতে পারে শান্ত। মনকে করতে পারে প্রফুল্ল। কোন ভালো গল্পের সাথে আপনি হতে পারেন একাত্ম। আবার কোন ভ্রমণ কাহিনী পাঠে ঘুরে আসতে পারেন লেখকের সাথে চেনা সীমানার বাইরে। সুতরাং অবসর জেলে বই পড়ুন, জ্বালুন মনের বাতি।

২. ঘুরে বেড়ান: ঘুরে বেড়াতে পারেন বিভিন্ন জায়গায়। সেটা হতে পারে দেশের ভেতরে, সাধ্য হলে দেশের বাইরে। হতে পারে পাহাড় কিংবা সমুদ্য। সমুদ্রের নীল যখন আকাশের নীলের সাথে মিশবে অথবা পাহাড়ের চূড়া যখন খেলা করবে মেঘের ভেলার সাথে, তখন মন হবে প্রফুল্ল। সতেজ হবে প্রাণ।

৩. ভাসুন সুরের ভেলায়: প্রিয় সুর, প্রিয় গান। যোগাবে মনের খোরাক। একটি ভালো গান অথবা আপনার পছন্দের কোন গান দূর করতে পারে আপনার বিষণ্নতা, নাচিয়ে তুলতে পারে মন। একা গভীর রাতে বারান্দায় যখন শীতল কাতাস লুটিয়ে পড়বে আপনার পায়ে, নিজের পছন্দ কোন গান শুনেই দেখুন না কেমন লাগে।

৪. মেতে উঠুন আড্ডায়: তরুণদের কাছে কিন্তু আড্ডাই জীবন। অনেকের কাছেই, আড্ডা তারুণ্যের মাইট্রকন্ডিয়া। মানে শক্তিঘর। অনেক দুশ্চিন্তা, মন খারাপের পোকা দূর হতে পারে আড্ডার ট্রেনে চাপলে। সুতরাং কাছের বন্ধুদের সাথে একটা জম্পেশ আড্ডা আপনার মস্তিষ্কতে তুলতে পারে আনন্দের আলোড়ন।

৫. খেলাধুলা করুন: খেলাধুলা শুধু স্বাস্থ্যের জন্যেই নয়। উপকারী মনের জন্যেও। তবে এই খেলার ভেন্যু কম্পিউটার কিংবা স্মর্টফোনে হলে হবে না। সবুজ মাঠে ফুটবল, ক্রিকেট বা আপনি যেটি পছন্দ করেন সেই খেলার কথা বলা হচ্ছে। খেলা আনবে পরিশ্রম, ঝরাবে ঘাম। আর আপনাকে করে তুলবে প্রাণবন্ত অবশ্যই।

৬. করুন সৃজনশীল কিছু: ভাল করিতা লিখতে পারেন আপনি? অথবা গল্প? অথবা গাইতে পারেন গান? আপনাকেই খুঁজছি আমরা। না কোন প্রতিযোগিতার জন্যে নয়। নিজের মনকে আনন্দ দেয়ার জন্যে জড়িয়ে পড়ুন কোন সৃজনশীল কাজে। যেটি আপনার ভালো লাগে। হয়তো নিজের লেখা একটি কবিতা শেয়ার করলেন ফেসবুকে। বন্ধুরা প্রশং সা করলো খব। দেখবেন কতই না ভালো লাগবে।

৭. বাড়িয়ে দিন আপনার হাত: কোনো স্বার্থ ছাড়া কখনো কারো উপকার করার মাঝে কী পরিমাণ আনন্দ কখনো টের পেয়েছেন? হয়তো কোন অন্ধ ব্যক্তিকে পার করে দিলেন রাস্তা, কখনো কোন ফেরিওয়ালাকে তার ঝোলা তুলতে করলেন সাহায্য। বাইরে বাদ দিয়ে পরিবারের কোন সদস্যেরও কোন কাজ করে দিতে পারেন যেটি সে একদমই আশা করিনি। অন্যকে খেুশি করার মাঝে নিজেকেও কীভাবে খুশি করতে হয় যাচাই করুন নিজেই।

আমাদের চলার পথে বিভিন্ন কারণে বিভিন্ন কাজে খারাপ হতে পারে আমাদের মন। জমতে পারে বিষণ্নতা। এই সব কিছু চাইলে দূর করতে পারেন উপরের ছোট ছোট কাজগুলি করে। ভালো থাকুন।


সংগৃহীত:-
    InterServer Web Hosting and VPS

    বাংলাদেশ পুলিমের সার্জেন্ট পদের প্রকৃত শূণ্যপদের ব[…]

    পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস কোম্পানি লিমিটেড (পিজিসিএল) -এর […]

    মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের অধীন সরাসরি নিয়োগযোগ্য রা[…]

    জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের রেগুলেশনের আলোকে স্নাতক (স[…]

    bdQuiz খেলতে খেলতে নিজের প্রস্তুতি পরীক্ষা করুন