Let's Discuss!

সাধারণ জ্ঞান বিষয়ক বিস্তারিত তথ্য
#3193
মহাবিশ্ব ও আমাদের পৃথিবী পর্ব-২
গ্যালাক্সি: মহাকাশে গ্রহ, নক্ষত্র, ধূলিকণা, ধূমকেতু, বাষ্পকুন্ডের এক বিশাল সমাবেশকে গ্যালাক্সি বলে । মহাকাশে একশত বিলিয়ন গ্যালাক্সি রয়েছে ।
ছায়াপথ: কোনো একটি গ্যালাক্সির ক্ষুদ্রতম অংশকে ছায়াপথ বা আকাশগঙ্গা বলে । একটি ছায়াপথ লক্ষকোটি নক্ষত্রের সমষ্টি । শীতকালে রাতের বেলা পরিষ্কার আকাশে লক্ষ করলে উত্তর-দক্ষিণে দেশ বড় তেজদীপ্ত স্বচ্ছ দীর্ঘ আলোর রেখা দেখা যায় । তারকাখচিত এই আলোর পথই ছায়াপথ । সৌরজগৎ এ রকম একটি ছায়াপথের অন্তর্গত। কোনো ছায়াপথ তার নিজ অক্ষকে কেন্দ্র করে একবার ঘুরে আসতে যে সময় প্রয়োজন, তাকে কসমিক ইয়ার বলে ।
নীহারিকা: নীহারিকা হলো মহাকাশে স্বল্পালোকিত তারকারাজির আস্তরণ ।
উল্কা: মহাকাশে অসংখ্য জড়পিন্ড ভেসে বেড়ায় । এই জড়পিন্ডগুলো অভিকর্ষ বলের আকর্ষণে প্রচন্ড গতিতে পৃথিবীর দিকে ছুটে আসে । বায়ুর সংস্পর্শ এসে বায়ুর সঙ্গে ঘর্ষণের ফলে এরা জ্বলে ওঠে। এগুলোকে উল্কা বা METEOR বলে । কোনো ধূমকেতুর অংশ বিশেষ কক্ষপথ থেকে বিচ্যুত হয়ে পৃথিবীর বায়ুমন্ডলে প্রবেশ করে ঘর্ষণে জ্বলে উঠলে তাকে উল্কা বলে ।
ধূমকেতু: মহাকাশে মাঝে মাঝে একপ্রকার জ্যোতিষ্কের আবির্ভাব ঘটে । এরা কিছুদিনের জন্য উদয় হয়ে আবার অদৃশ্য হয়ে যায় । এদের ধূমকেতু বলে । জ্যোতির্বিজ্ঞানী এডমন্ড হ্যালি যে ধূমকেতু আবিষ্কার করেন, তা হ্যালির ধূমকেতু নামে পরিচিত । হ্যালির ধূমকেতু ৭৬ বছরে একবার দেখা যায় । সর্বশেষ ১৯৮৬ সালে হ্যালির ধূমকেতু দেখা গেছে , আবার দেখা যাবে ২০৬২ সালে । বিগত শতব্দীর সবচেয়ে উজ্জল ধূমকেতু হেলবপ । জ্যোর্তিবিজ্ঞানী এলান হেল এবং টমাস বপ ১৯৯৫ সালে ধূমকেতুটি আবিষ্কার করেন ।
মহাজাগতিক রশ্মি: মহাশূণ্য থেকে পৃথিবীর বায়ুমন্ডলে উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন যে আলোক কণাগুলো প্রবেশ করে , তাদের সমষ্টিকে মহাজাগতিক রশ্মি বলে । বিজ্ঞানী ভিক্টর হেস মহাজাগতিক রশ্মি আবিষ্কার করার কারণে পদার্থ বিজ্ঞানে নোবেল পুরষ্কার লাভ করে ।
গ্রহ: যেসব জ্যোতিষ্ক কোনো নক্ষত্রকে ঘিরে নির্দিষ্ট সময়ে, নির্দিষ্ট কক্ষপথে আবর্তিত হয় তাদের গ্রহ বলে ।এদের নিজস্ব তাপ ও আলো নেই ।
উপগ্রহ : গ্রহকে কেন্দ্র করে যেসব জ্যোতিষ্ক নির্দিষ্ট গতিতে ও কক্ষপথে আবর্তিত হয়, তাদের উপগ্রহ বলে । এদের নিজস্ব তাপ ও আলো নেই । বুধ ও শুক্র গ্রহের কোনো উপগ্রহ নেই । বৃহস্পতি গ্রহের উপগ্রহ সবচেয়ে বেশি । শনি গ্রহের সবচেয়ে বড় উপগ্রহ টাইটান, যা সৌরজগতের সবচেয়ে বড় উপগ্রহ ।

    ১. ডিজিটাল প্রতারণার সাজা ৫ বছর বা ৫ লক্ষ বা উভয় […]

    ১. বিশ্বে চার ধরনের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা চালু রয়েছে[…]

    ১. ব্রিটিশ আমলে বাংলাদেশের প্রথম শিক্ষা কমিশন গঠিত[…]

    যদি স্বাধীনতা বলতে কিছু বোঝায়, তবে এর অর্থ লোকেরা[…]