Let's Discuss!

সাধারণ জ্ঞান বিষয়ক বিস্তারিত তথ্য
#2464
১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ভারতীয় সেনাবাহিনীতে লিঙ্গবৈষম্য দূর করতে ঐতিহাসিক এক রায় দেন দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। এ রায়ের মাধ্যমে সেনাবাহিনীতে নারীদের ‘স্থায়ী কমিশন’ দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। একমাত্র কমব্যাট উইং, অর্থাৎ যারা সরাসরি যুদ্ধ করেন- এ নির্দেশের বাইরে থাকছেন। তবে সেখানেও নারীরা যাতে পুরুষদের সমান অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা পান, তা নিশ্চিত করতে হবে। ভারতীয় সেনাবাহিনীর সকল স্তরে আগামী তিন মাসের মধ্যে এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে দেশটির সরকারকে নির্দেশ দেন আদালত।
ভারতীয় সেনাবাহিনীতে ১৯৯২ সালের আগে নারীরা শুধু চিকিৎসা পরিষেবায় নিয়োগ পেতেন। এরপর নারীদের জন্য ১৪ বছরের ‘শর্ট সার্ভিস কমিশন’ চালু হয়। এর আওতায় নারীরা ভারতীয় সেনা পরিষেবা বিভাগ, অস্ত্র কারখানা, শিক্ষা ও বিচার বিভাগ, ইঞ্জিনিয়ারিং, সিগন্যাল, গোয়ান্দা এবং ইলেকট্রিক্যাল ও মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ১০-১৪ বছর পর্যন্ত কাজের সুযোগ পাচ্ছিলেন। কিন্তু পদাতিক, গোলন্দাজ বাহিনীতে কাজ করার সুযোগ ছিল না। বিমান বাহিনী ও নৌবাহিনীর ক্ষেত্রেও তাদের নিয়োগ কিছু ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধ ছিল। পুরযষদের মতো ২০ বছর কাজ করার সুযোগ তাদের ছিল না। এ নিয়ে দিল্লি হাইকোর্টে আবেদন করে সশস্ত্র বাহিনীতে যুদ্ধ করার এবং কমান্ডিং অফিসার পদে নিযুক্ত হওয়ার অধিকার আদায় করেছিলেন সশস্ত্র বাহিনীর ৫৭ জন নারী। কিন্তু হাইকোর্টের নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিল কেন্দ্রীয় সরকার। ২০১০ সাল থেকে সেই আবেদন বিচারাধীন ছিল। সম্প্রতি তা নিয়ে নতুন করে শুনানি শুরু হলে আদালতে সরকার পক্ষ যুক্তি দেয়- সেনা সদস্যদের বড় একটি অংশ আসে গ্রাম থেকে, নারী কর্মকর্তাদের আদেশ মানার মতো মানসিকতা তাদের মধ্যে নেই। পাশাপাশি ‘নারীদের শারীরিক গঠনগত’ সীমাবদ্ধতার কারণে তারা যুদ্ধ করার উপযুক্ত নন; মাতৃত্ব, শিশুপালন ও যুদ্ধক্ষেত্রে শত্রুর হাতে ধরা পড়ার সম্ভাবনা এসব প্রসঙ্গ তুলে ধরা হয়। সুপ্রিম কোর্ট কেন্দ্রীয় সরকারের এমন মানসিকতার তীব্র সমালোচনা করেন। সেনাবাহিনীতে নারীদের নিয়োগের সিদ্ধান্ত প্রগতিশীল পদক্ষেপ এবং এ নিয়ে কোনো রকম বৈষম্য চলবে না বলে মন্তব্য করেন। আদালত বলেন, “নারীরা পুরুষ সহকর্মীদের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করেন। কেন্দ্রীয় সরকারের যুক্তি পুরনো ধারণাপ্রসূত ও লিঙ্গবৈষম্যমূলক।”

ডোনাল্ড ট্রাম্পের ভারত সফর
২৪-২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ভারত সফর করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক দেশটিতে এটাই ছিল ক্ষমতায় আসার পর ট্রাম্পের প্রথম সফর। সফরে ‘নমস্তে ট্রাম্প’ নামের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে গিয়ে তিনি ভারত ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে তিন বিলিয়ন মার্কিন ডলারের (প্রায় ২৫, ৫০০ কোটি টাকা) এক ঐতিহাসিক প্রতিরক্ষা চুক্তির ঘোষণা দেন।
এছাড়া সফরকালে ট্রাম্প গুজরাটের আহমেদাবাদে নির্মিত বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়াম উদ্ধোধন করেন। ১,১০,০০০ দর্শক ধারণক্ষমতা সম্পন্ন ‘সর্দার প্যাটেল স্টেডিয়াম’ নামের এ স্টেডিয়ামটি উদ্ধোধন হওয়ার ফলে অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন ক্রিকেট স্টেডিয়াম বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের খেতাব হারায়।

চীনের চার স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ
২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ মহাকাশে একসাথে চারটি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করে চীন। দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় প্রদেশ সিচুয়ানের শিচাং স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ কেন্দ্র থেকে স্যাটেলাইটগুলোর সফল উৎক্ষেপণ করা হয়। উৎক্ষেপণে ব্যবহার করা হয় ‘লং-মার্চ-৭ ক্যারিয়ার’ রকেট। এদিনের উৎক্ষেপণ কর্মসূচি ছিল লং মার্চ রকেটের ৩২৬তম মিশন। উৎক্ষেপণের পর স্যাটেলাইটগুলো পরিকল্পিতভাবে কক্ষপথে প্রবশ করেছে।
স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ ও এর গতিবিধি নিয়ে কাজ করে n2yo.com ওয়েবসাইটের তথ্য মতে, মহাকাশে সবচেয়ে বেশি স্যাটেলাইট রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের; ১৬৭৬টি। এরপরেই রয়েছে চীন; ২৯৮টি। এছাড়া আরো উল্লেখযোগ্য কয়েকটি দেশ এবং মহাকাশে তাদের স্যাটেলাইট সংখ্যা- জাপান ১৭২টি, ভারত ৮৮টি, ফ্রান্স ৬৮টি, যুক্তরাজ্য ৪২টি, দক্ষিণ কোরিয়া ২৪টি, স্পেন ২৩টি, তুরস্ক ১৪টি, সৌদি আরব ১৩টি ও পাকিস্তান ৩টি।

    নিউয়র্ক পুলিশে বাংলাদেশি কমান্ডার ২৯ জানুয়ারি ২[…]

    ১) ভাষার মূল উপাদান ধ্বনি ২) আভরণ শব্দের অর্থ অল[…]

    ICC’র প্রধান প্রসিকিউটর ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২১[…]