Let's Discuss!

সাধারণ জ্ঞান বিষয়ক বিস্তারিত তথ্য
#1889
১৯৬১ সালের পূর্বে ইরিত্রিয়া ছিলো ইথিওপিয়ার অংশ। প্রায় ২০ বছর (১৯৬১-১৯৯১) স্বাধীনতা যুদ্ধের পর এক গণভোটের মাধ্যমে ১৯৯৩ সালে ইরিত্রিয়া ইথিওপিয়া থেকে আলাদা হয়ে স্বাধীন রাষ্ট্র গঠন করে। এর মাঝে ইথিওপিয়া তে ১৯৭৫-১৯৯১ পর্যন্ত গৃহযুদ্ধ লেগে থাকে। একদিকে ইরিত্রিয়ার সাথে যুদ্ধ আবার নিজেদের মাঝেও যুদ্ধ। ইরিত্রিয়া স্বাধীন হয়ে গেলেও দুই দেশের সীমানা নিয়ে সংঘাতের কারণে ইরিত্রিয়া-ইথিওপিয়ার মাঝে প্রায় ২০ বছর যুদ্ধংদেহী মনোভাব বজায় ছিলো। কোনোভাবেই হর্ন অব আফ্রিকা খ্যাত ইথিওপিয়ার এই সংকট সমাধান করতে পারছিলেন না জাতিসংঘ কিংবা অপরাপর বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠানগুলো।
এরই মাঝে এপ্রিল ২০১৮ সালে আবি আহমেদ ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। মাত্র ১৮ মাসের মাঝেই তিনি ইরিত্রিয়ার সাথে শান্তি চুক্তির মাধ্যমে প্রায় ২০ বছরের সীমান্ত অচলাবস্থা গুছিয়ে নেন। ব্যক্তিগত প্রয়াস এবং আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংঘের দ্বারে কড়া নেড়ে তিনি এই অচলাবস্থা গোছাতে সক্ষম হন। ক্ষমতায় এসেই তিনি বিরোধী দলের উপর থেকে রাজনৈতিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেন, বহু রাজনৈতিক বন্দীকে মুক্তি দেন এবং তাকে যেই দল ক্ষমতায় বসিয়েছে (ইথিওপিয়ান পিপলস রেভুলুশনারি ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট) তাদের মদদপুষ্ট সকল দুর্নীতিগ্রস্ত এবং মানবাধিকার লঙ্ঘন করা উচ্চপদস্থ সরকারী কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করেন। সুন্দর ব্যাপার হলো আবি আহমদের ক্যাবিনেটের অর্ধেকই নারী, তার প্রধান বিচারপতি নারী এবং নির্বাচন বোর্ডের প্রধানও নারী।

Collected
Similar Topics

সরকারী ব্যাংকের রিসেন্ট পরীক্ষাগুলোর আলোকে বিশ্লেষ[…]

জাতিসংঘের বিশেষ সংস্থা: পর্ব ১ বিশ্বব্যাংক (WB - W[…]

Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman

Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman The founding lea[…]