Let's Discuss!

বাংলাদেশ বিষয়ক সাধারণ জ্ঞান
#2315
মুজিব শতবর্ষের ক্ষণগণনা শুরু
১০ জানুয়ারি ২০২০ বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় মুজিববর্ষেরে ক্ষণগণনা। তেজগাঁও পুরাতন বিমানবন্দরে (জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ড) ৪৮ বছর আগে জাতির জনকের স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ঘটনাপ্রবাহ রেপ্লিকার সাহায্যে প্রতীকী মঞ্চায়নের মধ্য দিয়ে এ ক্ষণগণনার সূচনা হয়। মুজিববর্ষের ক্ষণগণনার উদ্ধোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তার উদ্বোধনের পর প্রতিটি জেলা, উপজেলা ও সকল পাবলিক প্লেসে একই সাথে ক্ষণগণনা শুরু হয়। সারা দেশের ১২টি সিটি কর্পোরেশনের ২৮টি পয়েন্টে, বিভাগীয় শহরগুলো, ৫৩টি জেলা ও দুই উপজেলা এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ রাজধানীতে মোট ৮৩টি পয়েন্টে ক্ষণগণনা ঘড়ি বসানো হয়েছে। ক্ষণগণনা শেষে ১৭ মার্চ ২০২০ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে সূচনা হবে মুজিববর্ষের বছরব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন। দেশের সীমানা ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক পর্যায়েও থাকবে নানা আয়োজন।
একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানের কারাগারে থাকার পর, মুক্তি পেয়ে লন্ডন এবং দিল্লি হয়ে ১০ জানুয়ারি ১৯৭২ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে আসেন। শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশে ফিরে আসার ঐতিহাসিক এ দিনটিকে তার জন্মশতবার্ষিকীর ক্ষণগণনার দিন হিসেবে ঠিক করা হয়।
সংসদের বিশেষ অধিবেশন
’মুজিববর্ষ’ উপলক্ষে ২২-২৩ মার্চ ২০২০ জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশন আহবান করা হবে। সাংবিধানিক ক্ষমতাবলে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বিশেষ এ অধিবেশন আহবান করবেন। বিশেষ অধিবেশনে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম নিয়ে আলোচনা হবে, এছাড়াও থাকছে বিভিন্ন আয়োজন। বিশেষ অধিবেশনে বিদেশি অতিথিদেরও আমন্ত্রণ জানানো হবে। বিশেষ করে বঙ্গবন্ধুকে জানেন এমন বিদেশি অতিথিদের আমন্ত্রণ জানিয়ে তাদেরকে ঐ অধিবেশনে বক্তৃতা রাখার সুযোগ দেয়া হবে।
মুজিববর্ষের সময়কাল
১৫ জানুয়ারি ২০২০ জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তর পর্বে তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী, ১৭ মার্চ ২০২০ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ১৭ মার্চ ২০২০-২৬ মার্চ ২০২১ পর্যন্ত সময়কে মুজিববর্ষ ঘোষণা করা হয়।
মুজিববর্ষের কর্মসূচি
১৭ মার্চ ২০২০ জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে এক বর্ণাঢ্য উৎসবমুখর অনুষ্ঠান উদ্বোধনের মাধ্যমে মুজিববর্ষের বছরব্যাপী কর্মসূচি বাস্তবায়ন শুরু হবে। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোপধ্বনি ও জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে কর্মসূচির উদ্বোধন হবে। মুজিববর্ষের বছরব্যাপী দেশে-বিদেশে নানা কর্মসূচি থাকবে। সরকারি-বেসরকারি দপ্তর, সংস্থা, প্রতিষ্ঠান, এমনকি ব্যক্তি হতে অসংখ্য প্রস্তাব পাওয়া গেলেও বাস্তবায়নের সুবিধার্থে সমন্বিত কর্মপরিকল্পনায় ২৯৮টি কর্মসূচি রাখা হয়।
১ মার্চ বীমা দিবস
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১ মার্চ ১৯৬০ তৎকালীন পাকিস্তানের আলফা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিতে যোগদান করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর জন্য এটা ছিল রাজনীতির বাইরে প্রথম কোনো প্রতিষ্ঠানে চাকরি করা। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে তাই এ দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতে ১ মার্চকে জাতীয় বীমা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে সরকার। ৮ জানুয়ারি ২০২০ মন্ত্রিসভার বৈঠকে দিবসটি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এ সংক্রান্ত পরিপত্রের ‘খ’ ক্রমিকে অন্তর্ভুক্তের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়।
চারটি স্মারক মুদ্রা প্রকাশ
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে চারটি বিশেষ স্মারক মুদ্রা প্রকাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ২৭ আগস্ট ২০১৯ কেন্দ্রিয় ব্যাংকের পর্ষদ সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এগুলো হচ্ছে- স্বর্ণমুদ্রা একটি, স্মারক মুদ্রা একটি, ১০০ টাকা মূল্যমানের স্মারক নোট একটি এবং একটি ২০০ টাকা মূল্যমানের স্মারক নোট।
ঢাবি’র বিশেষ সমাবর্তন
মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সম্মানসূচক ‘ডক্টর অব ল’জ (মরণোত্তর) ডিগ্রি দিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশেষ সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হবে ৫ সেপ্টেম্বর ২০২০। এতে সমাবর্তন বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবে নোবেল বিজয়ী ভারতীয় বাঙালি অর্থনীতিবিদ অভিজিৎ ব্যানার্জি।
লোগো উন্মোচন
১০ জানুয়ারি ২০২০ উন্মোচন করা হয় মুজিববর্ষের লোগো।
লোগোর ডিজাইনার সব্যসাচী হাজরা।
    Similar Topics
    TopicsStatisticsLast post
    0 Replies 
    2261 Views
    by tasnima
    0 Replies 
    205 Views
    by bdchakriDesk
    0 Replies 
    2216 Views
    by kausar
    0 Replies 
    302 Views
    by kausar
    0 Replies 
    350 Views
    by afsara

    কাতারে ন্যূনতম মাসিক মজুরি ২৩,০০০ টাকা আইন পরিবর্[…]

    কাফালা প্রথা বাতিল সৌদি আরবে ৭০ বছর ধরে বিদেশি শ্[…]

    ঢাকা-জলপাইগুড়ি যাত্রীবাহী ট্রেন বাংলাদেশের স্বাধী[…]

    স্বাধীনতা সড়ক চালু ১৭ এপ্রিল ১৯৭১ বাংলাদেশের প্র[…]