Let's Discuss!

বাংলাদেশ বিষয়ক সাধারণ জ্ঞান
#2261
বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সমীক্ষা- ২০১৯

মোট জনসংখ্যা - ১৬ কোটি ৩৭ লাখ।
পুরুষ ও নারীর অনুপাত - ১০০.২ : ১০০।
জনসংখ্যার বৃদ্ধির হার (শতকরা) - ১.৩৭%।
জনসংখ্যার ঘনত্ব (প্রতি বর্গকিলোমিটার) - ১,১০৩ জন।
স্থুল জন্মহার (প্রতি হাজারে) - ১৮.৫%।
স্থুল মৃত্যুহার (প্রতি হাজারে) - ৫.১%।
শিশু মৃত্যুহার (প্রতি হাজারে) - ২৪%।
গর্ভ নিরোধক ব্যবহারের হার - ৬২.৫%।
প্রত্যাশিত গড় আয়ুষ্কাল - ৭২.০ বছর (পুরুষ- ৭০.৬ এবং নারী ৭৩.৫ বছর)।
ডাক্তার প্রতি জনসংখ্যা - ১,৭২৪ জন।
সুপেয় পানি গ্রহণকারী - ৯৮%।
স্বাস্থ্যসম্মত পায়খানা ব্যবহারকারী - ৭৬.৮%।
সাক্ষরতার হার ( ৭বছর+) - ৭২.৩% (পুরুষ - ৭৪.৩% ও নারী- ৭০.২%)।
মোট শ্রমশক্তির শতকরা হার হিসেবে
কৃষি - ৪০.৬%।
শিল্প - ২০.৪%।
সেবা - ৩৯%।

জাতীয় মহাসড়ক - ৩,৯০৬ কিমি।
আঞ্চলিক মহাসড়ক - ৪,৪৮৩ কিমি।
রেলপথ - ২,৯৫৬ কিমি।
দারিদ্র্যের হার - ২১.৮%।
চরম দারিদ্র্যের হার - ১১.৩%।
চলতি মূল্যে জিডিপি (কোটি টাকা) - ২৫,৩৬,১৭৭ কোটি টাকা।
স্থির মূল্যে জিডিপি (কোটি টাকা) - ১১,০৫,৫১৪ কোটি টাকা।
স্থির মূল্যে জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার (শতকরা) - ৮.১৩%।
চলতি মূল্যে মাথাপিছু জাতীয় আয় - ১,৯০৯ মা.ড.
চলতি মূল্যে মাথাপিছু জিডিপি - ১,৮২৭ মা.ড।
দেশজ সঞ্চয় - ২৩.৯৩%।
জাতীয় সঞ্চয় - ২৮.৪১%।
মোট বিনিয়োগ - ৩৫.৫৬% (সরকারি-৮.১৭, বেসরকারি- ২৩.৪০)।
রপ্তানি আয় (জুলাই’১৮-ফেব্রুয়ারি’১৯) - ২৭,১৪৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
আমদানি ব্যয় (জুলাই’১৮ - ফেব্রুয়ারি’১৯) - ৩৭,৮৩৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ (৩০ এপ্রিল’১৯) - ৩২, ১২৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
প্রবাসীদের প্রেরিত অর্থ (জুলাই’১৮-মার্চ’১৯) - ১১,৮৬৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
মূল্যস্ফীতি ২০১৮’- ১৯(জুলাই-মার্চ’১৯) ৫.৪৪%।
মোট ব্যাংকের সংখ্যা - ৫৯টি।
রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক - ৬টি।
বিশেষায়িত ব্যাংক - ৩টি।
বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক - ৪১টি।
বৈদেশিক ব্যাংক - ৯টি।
আর্থিক প্রতিষ্ঠান (ব্যাংক বহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান) - ৩৪টি।
দেশের মোট জনগণের মধ্যে বিদ্যুতের আওতায় আছে - ৯৩%।
ইপিজেড - ৮টি।
আবিষ্কৃত গ্যাসক্ষেত্র - ২৭টি (সর্বশেষ গ্যাসক্ষেত্র ভেদুরিয়া, ভোলা)।
দেশের মোট বাণিজ্যিক জ্বালানি ব্যবহারের প্রাকৃতিক গ্যাস পূরণ করছে - ৭১%।
জানুয়ারি ২০১৯ পর্যন্ত দেশের মোট মোবাইল ফোন গ্রাহকের সংখ্যা - ১৫.৭৫ কোটি।
২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে শীর্ষ দেশ - যুক্তরাষ্ট্র।
২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি পণ্য আমদানি করে - চীন থেকে।
২০১৮-১৯ অর্থবছরে বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি রেমিট্যান্স আসে - সৌদিআরব থেকে।
জানুয়ারি, ২০১৯ পর্যন্ত দেশে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার অনুমোদন দেওয়া হয় - ৮৮ টি (সরকারি-৬১টি, বেসরকারি -২৭টি)।
দেশে পাটকল কর্পোরেশনের নিয়ন্ত্রণাধীন মিলকারখানার সংখ্যা - ২৬টি।
দেশের রপ্তানি আয়ের মৎস্যখাত থেকে আসে - ১.৩৯%।
দেশে মাথাপিছু দৈনিক মাছ গ্রহণের পরিমাণ - ৬২.৫৮ গ্রাম।
দেশে মোট জনসংখ্যার কর্মক্ষম - ৫৮.৭%।
সমুদ্রবন্দর - ৩টি (চট্টগ্রাম, মংলা, পায়রা)।
স্থলবন্দর - ২৩টি।
বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের বহরে জাহাজ রয়েছে - ৭টি।
আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর - ৩টি।
অভ্যন্তরীণ বিমানবন্দর - ৭টি।
দেশে চার লেন জাতীয় মহাসড়ক রয়েছে - ৪১৭ কিমি।
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা - ১,৩৪,১৪৭টি (সরকারি -৬৫,৫৯৩, বেসরকারি-৬৮,৫৫৪)।
দেশে প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে - ২৫ ধরনের।
বর্তমানে প্রাথমিক শিক্ষায় ছাত্র-ছাত্রীর অনুপাত - ৪৯.২৫ : ৫০.৭৫।
সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির আওতায় রোগ প্রতিরোধক টিকা প্রদান করা হচ্ছে - ১০টি (ডিপথেরিয়া, হুপিংকাশি, ধনুস্টংকার, পোলিও, হাম, যক্ষ্মা, হেপাটাইটিস বি, হিমোফিলাস ইনফ্লুয়েঞ্জা-বি, নিউমোকক্কাল নিউমোনিয়া এবং রুবেলা)।
সারাদেশে সকল প্রকার টিকা গ্রহণকারী শিশুদের হার - ৮৫%।
সারাদেশে কমিউনিটি ক্লিনিক সম্পূর্ণরূপে কার্যকর রয়েছে - ১৩,৭৭৯ টি।
বর্তমানে বাংলাদেশের ৫৪টি ওষুধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন প্রকারের ওষুধ ও ওষুধের কাঁচামাল উন্নত বিশ্বের ইউরোপ ও আমেরিকাসহ যতটি দেশে রপ্তানি করছে - ১৪৬টি দেশে।
বিশ্বের সর্ববৃহৎ এনজিও - ব্র্যাক।
দেশে বেসরকারি বীমা কোম্পানি রয়েছে - ৭৬টি (সাধারণ বীমা-৪৫টি, জীবনবীমা-৩১টি)।
দেশে প্রতিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা - ১৩টি।
দেশে মোট বনভূমির পরিমাণ - ২.৩২ মিলিয়ন হেক্টর (বন অধিদপ্তরের আওতাধীন ১.৬০ মিলিয়ন হেক্টর ও জেলা প্রশাসনের নিয়ন্ত্রণাধীন ০.৭২ মিলিয়ন হেক্টর)।

    -১২ মার্চ ২০২১ জরুরি ভিত্তিতে ব্যবহারের জন্য জনসন […]

    ফাইজপার ও মডার্নার পর যুক্তরাষ্ট্রের করেনারার তৃতী[…]

    -যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশ হেফাজতে মারা যাওয়া কৃষ্ণাঙ্গ[…]

    -সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নিষেধ[…]