Try bdQuiz for Free!

বিষয় ভিত্তিক প্রস্তুতি : বাংলদেশ ও বিশ্ব, দৈনন্দিন বিজ্ঞান এবং সাম্প্রতিক ঘটনাবলি
#6908
"টানেল/ সুরঙ্গ পথ"
১. বিশ্বের দীর্ঘতম ,বৃহত্তম ও গভীরতম টানেল যেটি সুইজারল্যান্ড এর আল্পস পর্বতের পাদদেশে অবস্থিত রেল টানেল নাম গোথার্ড।
২. গোথার্ড টানেলের দৈর্ঘ্য ৫৭.০৯ কি মি।
৩. সমুদ্রের নিচ দিয়ে জাপানের হোক্কাইডো এবং হনসু দ্বীপকে সংযোগকারী রেল টানেল এর নাম সেইকান।
৪. চ্যানেল টানেল।
✓✓চ্যানেল টানেল এর অপর নাম ইউরো টানেল।
✓✓এটি ইংলিশ চ্যানেলের নিচ দিয়ে ফ্রান্স ও ইংল্যান্ডকে সঙ্গে যুক্ত করেছে।
৫. চীনের ড্যানইয়াং কুনসান গ্র্যান্ড ব্রিজ বিশ্বের দীর্ঘতম সেতু ,সেতুটির দৈর্ঘ্য ১৬৪.৮ কিলোমিটার।
৬. পৃথিবীর দীর্ঘতম সড়ক সেতু ?Bang Na Expressway, থাইল্যান্ড (৫৪ কি.মি)।
৭. যুক্তরাষ্ট্র-কানাডার সীমানায় নায়াগ্রা নদীর উপর অবস্থিত সেতুর নাম শান্তি সেতু।
৮. গোল্ডেন গেট ব্রিজ সেতু এর অবস্থান সান ফ্রান্সিসকো, যুক্তরাষ্ট্র।
৯. বিশ্বের দীর্ঘতম রেলপথ? ট্রান্স সাইবেরিয়ান রেলপথ, রাশিয়া।
১০. করিডর
✓✓একই রাষ্ট্রের দুই অংশের মধ্যে যোগাযোগে অন্য কোন রাষ্ট্রের ভূখণ্ডের মধ্য দিয়ে সম্পন্ন করাকে করিডর বলে ।
✓✓যেমন ভারতের সেভেন সিস্টার্স এ পণ্য পরিবহনের জন্য বাংলাদেশের ভূখণ্ড ব্যবহার করে।
১১. ট্রানজিট
✓✓একটা দেশ দ্বিতীয় দেশের ভূখণ্ড ব্যবহার করে তৃতীয় কোন দেশের জন্য পণ্য পরিবহন করে নিয়ে যাওয়া।
✓✓যেমন বাংলাদেশ-ভারতের ভূখণ্ড ব্যবহার করে নেপাল বা ভুটানে পণ্য পাঠায়।
১২. ট্রান্সশিপমেন্ট
✓✓ট্রান্সশিপমেন্ট হচ্ছে তৃতীয় একটি দেশের বন্দর ও পরিবহন ব্যবস্থাকে ব্যবহার করে প্রতিবেশী বা অন্য কোন দেশের পণ্য পরিবহন করা। এর ফলে কোন একটি দেশ তাদের পণ্য তৃতীয় একটি দেশের বন্দর, সড়ক বা রেল অর্থাৎ যানবাহন ব্যবহার করে নিজের দেশের আরেক অংশে বা অন্য কোন দেশে পাঠিয়ে থাকে। এজন্য তাদের সব খরচ বহন করতে হয়।
✓✓মোটকথা ট্রানজিটে নিজ দেশের যানবাহন অন্যদেশে ঢুকতে পারবে কিন্তু ট্রন্সশিপমেন্ট পারবে না।
✓✓যেমন-
ভারতের পণ্যবাহী যানবহন যখন বাংলাদেশের উপর দিয়ে ভারতের অন্য কোন রাজ্যে/ নেপাল/ ভুটানে পৌঁছে দেয় তখন থাকে ট্রানজিট বলে ।
✓✓আর ভারতের পণ্যবাহী যানবহন যদি বাংলাদেশের ভূখণ্ড পারের জন্য বাংলাদেশি যানবহন ব্যবহার করে ও বাংলাদেশের ভূখণ্ড পারা হওয়ার সাথে সাথেই অন্য দেশের যানবহন ব্যবহার করে ভারতের অন্য কোন রাজ্যে/ নেপাল/ ভুটানে পৌঁছে দেয় তখন থাকে ট্রানশিপমেন্ট বলে ।
১৩. ১৮৭৭ সালে জার্মান ইতিহাসবিদ ও ভূগোলবিদ ফার্ডিন্যান্ড ভন রিকথোফেন প্রথম সিল্ক রোড নামকরণ করেন।
১৪. প্রাচীন সিল্ক রোডের আধুনিক সংস্করণ হল ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড।
১৫. ২০১৩ সালে এশিয়াকে ইউরোপ ও আফ্রিকার সঙ্গে যুক্ত করে বাণিজ্য অবকাঠামোগত নেটওয়ার্ক তৈরির লক্ষ্যে ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড করার পরিকল্পনা উদ্যোগ গ্রহণ করে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং।
১৬. এ প্রকল্পে অর্থায়নের জন্য এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক নামে চিনে নেতৃত্বে ১০ হাজার কোটি ডলারের মূলধন এর একটি ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।
১৭. ২০১৬ সালে বাংলাদেশ ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড প্রকল্পে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগদান করে।

সংগৃহীত:-
    Similar Topics

    এখন সময়টাই প্রচন্ড ব্যস্ত। প্রতি মুহুর্তে বেড়ে চ[…]

    ৪. ব্লগে লিখুন কিংবা তৈরি করুন ব্যক্তিগত ব্লগসাইটঃ[…]

    bdQuiz খেলতে খেলতে নিজের প্রস্তুতি পরীক্ষা করুন