Let's Discuss!

বিষয় ভিত্তিক প্রস্তুতি : বাংলদেশ ও বিশ্ব, দৈনন্দিন বিজ্ঞান এবং সাম্প্রতিক ঘটনাবলি
#2550
১. মানব দেহে খনিজ লবণ থাকে – ৪%
২. চা ও কফিতে থাকে – ক্যাফেইন
৩. ক্যাফেইন দেহের স্নায়ুকে – চাঙ্গা করে
৪. বর্তমানে প্যারাসিটামল জাতীয় ঔষধে মেশানো হয়- ক্যফেইন
৫. সুর্যালোক ও সামুদ্রিক মাছ – ভিটামিন ডি এর উৎস
৬. কচুশাকে থাকে – লৌহ
৭. ক্ষতস্থানে রক্ত পড়া বন্ধে সাহায্য করে – ভিটামিন K
৮. হৃদরোগের ঝুঁকি কমায় – ভিটামিন E
৯. প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে – ভিটামিন E
১০. ভিটামিন D তৈরিতে সাহায্য করে – UV (Ultra Violet)
১১. ভিটামিন C এর অভাবে হয় – স্কার্ভি ও সর্দি-কাশি
১২. কোলাজেন হল – এক ধরণের প্রোটিন
১৩. জন্ডিস হয় – রক্তে বিলিরুবিনের মাত্রা ০.২-০.৮ এর উপরে গেলে
১৪. ত্বক কালো হয় – ত্বকে মেলানিনের মাত্রা বেশি হলে
১৫. ত্বক ফর্সা হয়- ত্বকে মেলানিনের মাত্রা কম হলে
১৬. মানব দেহের সবচেয়ে বড় অস্থি- ফিমার (উরুর হাড়)
১৭. মানব দেহের সবচেয়ে ছোট অস্থি- স্টেপিস (কানের ভেতরের হাড়)
১৮. ভয় পেলে গায়ের লোম খাড়া হয়- অ্যাডরিনালিন হরমোনের কারনে
১৯. মানব দেহে প্রধান রেচক অঙ্গ – বৃক্ক (Kidney)
২০. মুত্র তৈরি হয় – বৃক্কে
২১. মুত্রের সাথে নির্গত হয়- ইউরিয়া
২২. পিত্তরস তৈরি হয়- যকৃতে
২৩. পিত্তরস জমা থাকে- পিত্তথলিতে
২৪ .পিত্তরসের রং – সবুজভাব হলুদ
২৫ .পাকস্থলীর অপর নাম – গ্যাস্ট্রিক
২৬.পাকস্থলী থেকে নিঃসৃত রস- পাচক রস
২৭. পাকস্থলীতে থাকে – জীবাণুনাশক হাইড্রক্লোরিক এসিড
২৮ পাকস্থলিতে/ক্ষুদ্রান্তে ঘা হুয়ার নাম – পেপটিক আলসার
২৯. ‘সার্স’ ভাইরাসের অপর নাম – হংকং ভাইরাস
৩০. ‘সার্স’ ভাইরাস প্রথম দেখা যায় – চীনে
৩১. মানুষের রক্তের স্বাভাবিক সিস্টোলিক চাপ হল – ১১০-১৪০
৩২. মানুষের রক্তের স্বাভাবিক ডায়াস্টোলিক চাপ হল – ৬০-৯০
৩৩. ধমনীর স্পন্দন- আছে (মিনিটে ৭২ বার)
৩৪. শিরার স্পন্দন – নেই
৩৫. অক্সিজেনযুক্ত পরিষ্কার রক্ত হৃৎপিণ্ড থেকে অন্যান্য অংশে নিয়ে যায় –
ধমনী
৩৬. এনজিওগ্রাফ হল- হৃদস্পন্দনের গ্রাফিক্যাল চিত্র
৩৭. হার্টের প্রকোষ্ঠগুলোর মাঝামাঝি নিয়ন্ত্রক কপাটিকাগুলোকে বলে – ভাল্ব
৩৮. চোখের পানি নিঃসরনের উৎস – ল্যাক্রিমাল গ্রন্থি
৩৯. ঘাম নিঃসরনের উৎস – মবোমিয়ান গ্রন্থি
৪০. ইনসুলিন নিঃসরনের উৎস- অগ্ন্যাশয়ের আইলেটস অব ল্যাঙ্গারহেনস
৪১ চিনির বিপাক নিয়ন্ত্রণ করে – ইনসুলিন
৪২. ডায়াবেটিস হয় – ইনসুলিন নামক হরমোনের অভাব হলে
৪৩. ডায়াবেটিস হলে – রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বেড়ে যায়
৪৪.দাড়ি/গোফ গজায় – টেস্টোস্টেরন হরমোনের প্রভাবে
৪৫.শ্বসনে প্রয়োজন হয় – অক্সিজেন
৪৬.শ্বসনের ফলে তৈরি হয় – কার্বন-ডাই-অক্সাইড
৪৭.যে যন্ত্রের মাধ্যমে হার্টের সংকোচন/প্রসারণ কৃত্রিমভাবে করানো যায় –
পেসমেকার
৪৮. খাদ্যসার এর মধ্যে রয়েছে- গ্লুকোজ, অ্যামাইনো এসিড ও ফ্যাটি এসিড
৪৯. হিমোগ্লোবিন কোষে – অক্সিজেন সরবরাহ করে
৫০. হিমোগ্লোবিন ফুসফুসে – কার্বন ডাই অক্সাইড ফিরিয়ে দেয়
৫১. মানব দেহের দীর্ঘতম কোষ- স্নায়ুকোষ (১মিটার)

সংগৃহীত
    Similar Topics
    TopicsStatisticsLast post
    0 Replies 
    486 Views
    by masum
    0 Replies 
    160 Views
    by tarek
    0 Replies 
    149 Views
    by tarek
    0 Replies 
    143 Views
    by tarek
    0 Replies 
    149 Views
    by tarek